স্মারট লোকের কথা

smart people3
0

সামাজিক শিষ্ঠাচারগুলোকে উন্নত করুন নতুন ধারনায়

কিছু কথা আমরা গৎবাঁধা নিয়মে বলে যাই। অন্যরা বলে তাই আমরাও বলি। কিন্তু ঠিক ওই কথাগুলো আমাদেরকে কেউ বললে আমরা কিভাবে নিয়ে থাকি। আমি যখন কাউকে বলি সে কিভাবে নেয় খুব কম লোকই সেটা ভাবে।

কোনো কথা বাস্তবে কী অর্থ বহন করে সেটা আমরা বেমালুম চেপে যাই। কিন্তু যাকে বলি তার যদি সময় ভালো না থাকে বা তিনি যদি খেয়াল করে তাহলে সেটা তার মনে খারাপভাবে গেঁথে থাকে।। এজন্য আমাদের উচিত ঠিক যে মুহুর্তে কোনো ব্যক্তিকে এ ধরনের কথা বলছি তার কষ্ঠটা বোঝা এবং তার জায়গা থেকে ভাবা। সামাজিক এই সচেতনতা আমাদের থাকা উচিত তা না হলে সামাজিক মেলবন্ধন ঢিলেঢালা হয়ে যেতে পারে।

. সবকিছু কি ঠিক আছে?

মানুষ যখন ক্লান্ত থাকে তখন তারা ভাবাবেগ হারায়।  চোখগুলো গর্তে ঢুকে থাকে, চুলগুলো থাকে উসখুসু, মনোযোগ থাকে এলোমেলো আর মেজাজ হয়ে থাকে খিটখিটে।

আর যাকে বলছেন- আপনাকে ক্লান্ত লাগছে মানে থাকে মোটেও ভালো দেখাচ্ছেনা সেটাই বোঝানো হচ্ছে তাই বলুন, “সবকিছু ঠিক আছে তো”? কাউকে ক্লান্ত লাগলে লোকে তাকে একথা জিজ্ঞেস করেন কারণ তারা তার প্রতি সহযোগিতামূলক মনোভাব দেখানো। কারো খারাপ অবস্থা মনে হলে মন্তব্য করার চেয়ে বরং তার কাঝে জানতে চান। আর এতেই সে আশ্বস্থ এবং নিজের অবস্থা নিয়ে কথা বলবে।  তখন কোনো দূরত্ব থাকলে তা ঘুচে যাবে।

. বলুন আপনি প্রায়ই…

আপনি সব সময় এটা করেন ওটা করেন, কখনো আপনার মাঝে এই দেখিনি সেই দেখিনি এভাবে বলা ঠিক নয়। এভাবে বলার মানে হলো আপনি কাউকে সবদিক থেকে নাকচ করে দিচ্ছেন। কিন্তু আপনি এটা করতে পারেন না বরং আপনি বলুন প্রায় দেখি আপনি এটা করছেন বা ওটা পারছেন না- বলুনতো আসল ব্যাপারটা কি?

 

. ‘আমি আগে যেমনটা বলেছি…’  নয় বরং আবার বলুন পরিষ্কার করে

আমরা প্রায় বলি- ‘‘আমি আসলে আগেই বলেছি বা হাঁ আমি আগে যা বলেছি’’ এ কথাটি বলে নিজেকে পুনর্ব্যক্ত করতে গিয়ে অপমানিত বোধ করছেন বা আপনি ভাব নিয়ে বসে আছেন।  এটা না করে আপনি যখন দ্বিতীয়বার কথাটি সংক্ষেপে এবং ঘুচিয়ে বলবেন তখন তখন বিষয়টি আরো পরিষ্কার ওকৌতুহলোদ্দীপক হবে। আগেরবার কথাটি বোঝার ব্যাপার কোনো কমতি থাকলে সেটা কেটে যাবে।

. ‘শুভকামনার সাথে এটাও বলুন চেষ্টা করলে আপনি পারবেন

আপনি যখন সৌভাগ্য কামনা করেন তখন বিষয়টা এমন নয়যে, সব আশা শেষ এখন শুধু ভাগ্যের উপর ভরসা। আপনি কেবল কোনো আশার বানী না শুনিয়ে এক লাইনে দোয়া করে দিলেন। এখন এই দোয়া তার কাজে আসতেও পারে আবার নাও আসতে পারে।   কিন্তু এই বিষয়টা আপনি আরো সুন্দরভাবে তুলে ধরতে পারেন। “আমি জানি এর জন্য যা দরকার তা আপনার আছে”। কারো জন্য সৌভাগ্য কামনা করার চেয়ে বরং সফল হওয়ার জন্য তাদের প্রয়োজনীয় দক্ষতাটি আছে বলে সাহস দেয়া উত্তম বলেই বিশেষজ্ঞরা মনে করেন। ।

. ‘ভাই সেটা আপনার ব্যাপার, আমি অতকিছু বঝিন’

আপনি হয়তো কারো সমস্যার ব্যাপারে উদাসীন হতে পারেন। কিন্তু কখনো কখনো তার কাছে আপনার মতামতটি খুব দরকার হতে পারে।  যখন কেউ এমন কোনো মতামত চাইবে। বিষয়টা বুঝে তাকে পরামর্শ দিন। যদি সত্যিকার অর্থে আপনার বোধের অগম্য হয় তাহলে অন্য কোথায় গেলে উনি তথ্য বা পরামর্শ পাবেন অন্তত সেটুকু বলে দিন। তবে ভুল বা অনুমান নির্ভর তথ্য কখনো নয়। কারণ বিপদের সময় তার তথ্য যাচাই করার মতো অবস্থা নাও থাকতে পারে।

 

. ‘আচ্ছা, আমি অন্তত কখনোই না…’

যখন অপরজনের  ভুলের প্রতি ইঙ্গিত করে নিজেকে সেরা বোঝানোর চেষ্টা থাকে তখন এই ধরনের সংলাপ এসে যায়। বাস্তবতা হলো এই ভুল আপনারও হতে পারে এবং হয়তো হয়েছেও। তাকে ক্ষমাসুলভ দৃষ্টিতে দেখুন আর বলুন- “আমি দুঃখিত” বা আমি মর্মাহত আপনি হয়তো বিষয়টি ভালোভাবে খেয়াল করেননি তাই ভুল হয়ে গেছে। আর যদি কেউ আপনাকে ইঙ্গিত করে, বলেন দু:খিত।

.  বয়স ও ওজন মেনশন করে কথা না বলুন

আমরা হরহামেশা বলে থাকি- ওজন কমায় আপনাকে ভালো লাগছে। এর মানে আমরা তাকে মনে করিয়ে দিচ্ছি যে তার ওজন বেশী ছিলো। তারচেয়ে বলুন, “আপনাকে দেখতে বেশ ভালো লাগছে”। তাকে আগে দেখতে কেমন লাগতো সে প্রসঙ্গ মোটেই বাঞ্চনীয় নয়।

এরকম কখনো আপনি হয়তো বলে থাকেন আপনাকে বয়সের তুলনায় বেশ ইয়াং লাগছে। এর মানে আপনি তাকে তার বয়সের কথা মনে করিয়ে দিচ্ছেন এবং আপনি বলতে চাচ্চেন আপনি তার বয়স খেয়াল করেছেন। তাই এভাবে না বলে বরং বলুন- আপনাকে অনেক ভালো লাগছে।

এমন ছোটখাটো অভ্যাস, ভদ্রতা এবং সামাজিকতা চর্চা করে আপনি নিজেকে আলাদা করে নিতে পারেন। একসময় আপনার অনন্য আচরণ সকলের চোখে পড়বে এবং কারো কাছে হতে পারেন আদর্শ।

 

সূত্র: বিজনেস ইনসাইডার, লেখা: জাহাঙ্গীর আলম শোভন

 

 

Share this to your friend

Leave us a comment